খবর পেয়েছি, বিরোধীদের ফাঁসাতে ৪ হাজার ভোটকেন্দ্র পোড়াবে সরকার : নূর

0
Array

গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি নুরুল হক নূর বলেন, খবর পেয়েছি- সরকার বিরোধীদের ফাঁসাতে ২৮শে অক্টোবরের মতো পুলিশ, সামরিক বাহিনীর সদস্যদের হত্যা করতে পারে। ৪ হাজার ভোটকেন্দ্র পোড়াবে। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় কাওরানবাজারে গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ শেষে বাংলামোটর মোড়ে সংক্ষিপ্ত পথসভায় তিনি এসব কথা বলেন। নুর বলেন, আওয়ামী লীগের নেতা, সরকারের এমপি, মন্ত্রীরা হঠাৎ নাশকতা ও গুপ্তহত্যার কথা বলছেন। সরকারের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যক্তি সড়ক-পরিবহন সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি নাকি গুপ্ত হত্যা ঘটাতে এজেন্ট ঠিক করেছে। পুলিশের আইজিপিও নাশকতার কথা বলছেন। যেখানে বিএনপির সিনিয়র নেতৃবৃন্দ মিথ্যা মামলায় কারাগারে, প্রকাশ্যে চলাফেরা করতে পারছে না সেখানে তারা কিভাবে নাশকতা, গুপ্ত হত্যার প্ল্যান করবে? অর্থাৎ আওয়ামী লীগ ও সরকারের এজেন্সি যে গুপ্ত হত্যা ও নাশকতার প্ল্যান করছে ওবায়দুল কাদের সাহেবরা আগেই সেটি বিএনপিসহ বিরোধীদের উপর দায় চাপাতে চাচ্ছে। কয়েক দিন আগে আপনারা দেখেছেন মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেসে নাশকতার দুদিন আগেই ডিএমপি থেকে স্বাস্থ্য বিভাগকে চিঠি দিয়ে ঢাকায় হাসপাতালসমূহে স্ট্যান্ডবাই ডাক্তার, এ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরি সেবা প্রস্তুত রাখতে চিঠি দিয়েছিলো। কারণ তারা ভয়াবহ নাশকতার প্ল্যান করেছিলো, আল্লাহ রক্ষা করছে। একইভাবে তারা সামনে বড় ধরনের নাশকতা, গুপ্তহত্যার প্ল্যান করেছে।

তারা বিরোধীদের ফাঁসাতে ২৮ অক্টোবরের মতো পুলিশ, সামরিক বাহিনীর সদস্যদের হত্যা করতে পারে, খবর পেয়েছি ৪ হাজার ভোটকেন্দ্র পোড়াবে। যাতে বিএনপিসহ বিরোধীদের উপর দায় চাপিয়ে বিরোধীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সহিংস হিসেবে দেখাতে পারে। জনগণকে সতর্ক ও সজাগ থাকতে হবে। সরকার জনগণকে রাস্তায় নামতে দিচ্ছে না, জনগণ যেদিন রাস্তায় নামতে পারবে সেদিনই গণঅভ্যুত্থান ঘটবে। আমরা জনগণকে সাথে নিয়ে গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে এই ভারতীয় তাবেদার সরকারকে হঠিয়ে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবো। জনগণের প্রতি আহ্বান, আপনারা ভারতীয় মদদের দেশ ধ্বংসের এই একতরফা নির্বাচন বর্জন করুন। ৭ তারিখ কেউ ভোট দিতে কেন্দ্রে যাবেন না। প্রশাসন ও সামরিক বাহিনীর সদস্যদের প্রতি অনুরোধ আপনারা এই একতরফা নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করে নিজেদের উপর নিষেধাজ্ঞা আনবেন না। এই একতরফা নির্বাচনে জড়িতদের ইউরোপ-আমেরিকা নিষেধাজ্ঞা দিবে।

বাংলামোটর মোড়ে রূপায়ন টাওয়ারের নিচে পথসভা শেষে ইস্কাটন রোডের দিকে গণসংযোগ শুরু করলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্বাচনী ক্যাম্পের কর্মীরা এসে স্লোগান ও লিফলেট বিতরণ বন্ধ করতে বলে এবং গালিগালাজ শুরু করে। মুহূর্তে আরেকদল সন্ত্রাসী এসে গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি নুরুল হক নুর ও সাধারণ সম্পাদক মো. রাশেদ খাঁন যে গাড়িতে ওঠেন, সেই গাড়িতে হামলা করতে উদ্যত হয়। তখন গাড়ির পিছনে থাকা গণঅধিকার পরিষদের নেতাকর্মীরা এগিয়ে এলে তাদেরকে মেরে আহত করে নির্বাচনী ক্যাম্পের কর্মীরা। সাংবাদিকরা ভিডিও করতে গেলে সাংবাদিকদের দিকেও তেড়ে যায় তারা।

গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমানের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন, গণঅধিকার পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মোঃ রাশেদ খাঁন, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাসান মামুন,ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি নাজিম উদ্দিন, ছাত্র অধিকার পরিষদের সভাপতি তারিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম আদীব, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান, যুব অধিকার পরিষদের সভাপতি মনজুর মোর্শেদ মামুনসহ দলের নেতাকর্মীরা।

About Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • Click to Chat
  • Click to Chat
  • Click to Chat
  • Click to Chat