এ সরকার সবচেয়ে বড় স্বৈরাচারী : জিএম কাদের

0

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের (জিএম কাদের) বলেছেন, বর্তমান সরকার শুধু গণতন্ত্রকে ধ্বংস নয়-একদলীয় শাসন কায়েম করেছে। এ সরকার সবচেয়ে বড় স্বৈরাচারী সরকার। এ সরকার ক্ষমতায় থাকলে নতুন প্রজন্ম ধ্বংস হয়ে যাবে। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা স্বৈরাচারী সরকারের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করব, রুখে দাঁড়াব। শুক্রবার নীলফামারী জেলা জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

সন্ধ্যায় নীলফামারীর শহিদ মিনার চত্বরে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের আরও বলেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র আমাদের জন্য বড় ধরনের ঝুঁকি। এ বিদ্যুৎ প্রকল্প অত্যন্ত বিপজ্জনক। রাশিয়ার চেরনোবিল আনবিক দুর্ঘটনার পর সেখানকার ৫০ কিলোমিটারের মধ্যে কোনো বসতি স্থাপন করতে দেওয়া হয় না। রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্রে দুর্ঘটনা ঘটলে তা ভয়াবহ রূপ নেবে। যা আমাদের পক্ষে সামাল দেওয়া অসম্ভব হয়ে পড়বে। এমন একটি দুর্ঘটনা ঘটলে আমরা কী মোকাবিলা করব? পারমাণবিক শক্তি নয়; আমরা পারমাণবিক বিপদ ঘাড়ে নিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্রের কোনো নিয়ন্ত্রণ বাংলাদেশের হাতে থাকবে না। কারণ এ প্রকল্পের সব ইঞ্জিনিয়ার রাশিয়ার আর পরামর্শক ভারতের। পশ্চিমা দেশগুলো এখন আর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প হাতে নিচ্ছে না। অথচ সাড়ে ১১ বিলিয়ন ডলারে বাংলাদেশ দুই হাজার ৪০০ মেগাওয়াটের পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প হাতে নিয়েছে। ভারতে তিন হাজার মেগাওয়াটের একই ধরনের প্রকল্প বাস্তবায়নে পাঁচ বিলিয়ন ডলার খরচ হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, আমরা আগে বলেছি-বাংলাদেশকে রক্তশূন্য করে সরকার তার গায়ে গহনা পরিয়ে দিয়েছে। এখন বলতে চাই-সরকার বাংলাদেশের দেহ থেকে কিডনি ও লিভার বের করে বিক্রি করে দিচ্ছে। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য আমরা একটি ঝুঁকিপূর্ণ দেশ রেখে যাচ্ছি। সস্তা বিদ্যুতের নামে আমরা পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র চাই না। জিএম কাদের আরও বলেন, অবহেলিত উত্তরবঙ্গের মানুষের উন্নয়নের জন্য আলাদা দরদ ছিল পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের। তাই, উত্তরবঙ্গের মানুষও অকৃত্রিমভাবে তাকে ভালোবাসে।

জেলা জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু এমপি বলেন, আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ক্ষমতার লোভে অন্ধ হয়ে গেছে। ক্ষমতার জন্য দুটি দলের নেতারা আবোল-তাবোল বলছেন। এ দুটি দলের হাত থেকে দেশের মানুষ বাঁচতে চায়। জাতীয় পার্টি দেশের মানুষকে মুক্তি দেবে। জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি বলেন, ক্ষমতার মোহে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মুখোমুখি অবস্থানের কারণে দেশের মানুষের মাঝে ভীতি ছড়িয়ে পড়েছে।

জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক এন কে আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব একেএম সাজ্জাদ পারভেজের সঞ্চালনায় সম্মেলনে বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু, জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জাতীয় মহিলা পার্টির যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমা আক্তার এমপি, মেজর (অব.) রানা মোহাম্মদ সোহেল এমপি, ভাইস-চেয়ারম্যান আহসান আদেলুর রহমান এমপি, এসএম ইয়াসির প্রমুখ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রেসিডিয়াম সদস্য মীর আবদুস সবুর আসুদ, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, আলমগীর সিকদার লোটন, জহিরুল ইসলাম জহির, মোস্তফা আল মাহমুদ, উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য একেএম মোস্তাফিজুর রহমান, ড. মেহজেবুন্নেসা রহমান টুম্পা, মাসরুর মওলা, আনিসুল ইসলাম মন্ডল, বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মমতাজ উদ্দিন, মোকাম্মেল হকসহ জেলা ও উপজেলার নেতারা।

জেলা নেতাদের মধ্যে বক্তব্য দেন জয়নাল আবেদীন, সিদ্দিকুল আলম সিদ্দিক, রশিদুল আলম, শরিফুল ইসলাম প্রিন্স, লে. কর্নেল (অব.) তসলিম উদ্দিন, হামিদুল ইসলাম, চয়ন, সায়েদুর রহমান ভুলু, মোশাররফ হোসেন মিন্টু, বজলার রহমান, আতাউর রহমান বাবু প্রমুখ।

About Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • Click to Chat
  • Click to Chat
  • Click to Chat
  • Click to Chat