ভিসা নিষেধাজ্ঞা : প্রশাসনের মধ্যে উৎকণ্ঠা, উদ্বেগ

0
Array

প্রথম পর্যায়ে ভিসা নিষেধাজ্ঞা ঘোষণার পরপরই প্রশাসনের মধ্যে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়েছে। প্রশাসনের মধ্যে খোঁজ খবর নেওয়ার প্রবণতা তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন মহল টেলিফোনে একে অন্যকে জিজ্ঞেস করছেন যে, কারা কিভাবে ভিসা নিষেধাজ্ঞার আওতায় এলেন। এ সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানার জন্য এক ধরনের মরিয়া চেষ্টা দেখা গেছে। তবে লক্ষণীয় ব্যাপার যে প্রশাসনের মধ্যে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা সবচেয়ে বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং বিচার বিভাগের কর্মকর্তাদের মধ্যে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একাধিক ব্যক্তি ভিসা নিষেধাজ্ঞার আওতায় এসেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর এক ধরনের ভয় এবং আতঙ্ক তৈরি হয়েছে।

অন্যদিকে বিচার বিভাগের কয়েকজন ব্যক্তির ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে এমন তথ্য পাওয়ার পর বিচার বিভাগের কর্মকর্তাদের মধ্যে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা লক্ষ্য করা গেছে। তাছাড়া প্রশাসনের মধ্যে এক ধরনের ভয় লক্ষ্য করা যাচ্ছে এবং তারা সামনে কি হয় এই নিয়ে আতঙ্কে রয়েছেন। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ অধিবেশনে ভাষণের পর নিউইয়র্কের সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন যে, ভিসা নিষেধাজ্ঞা নিয়ে ভয়ের কিছু নেই। আতঙ্কিত হবার কিছু নেই।

তিনি এটিও বলেছেন যে, বাংলাদেশে যারা অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনকে বাধা প্রদানের চেষ্টা করবে, তাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশও ভিসা নিষেধাজ্ঞা দেবে। প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য প্রশাসন এবং আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীদের উদ্বেগ কতটুকু নিরসন করতে পারবে সেটি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

বিভিন্ন মহলের সঙ্গে কথা বলে দেখেছে যে, ভিসা নিষেধাজ্ঞার প্রভাব রাজনীতিবিদদের ওপর অনেক কম পড়েছে। আওয়ামী লীগের কোনো নেতাই ভিসা নিষেধাজ্ঞা নিয়ে তেমন উদ্বিগ্ন নয়। বরং তারা মনে করছে যে, এই ভিসা নিষেধাজ্ঞাকে মাথায় রেখেই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন করতে হবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সামনে আরও চাপ দেবে, এটাকে মাথায় নিয়েই কাজ করতে হবে।

আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতা মনে করছেন যে, প্রধানমন্ত্রী শুরু থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যে অবস্থান নিয়েছিলেন সেই অবস্থানটি সঠিক ছিল। কিন্তু মাঝখানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং বিভিন্ন ব্যক্তিরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের যে নাটক করেছিল সেটি সরকারের জন্য ক্ষতিকারক হয়েছে বলে তারা মনে করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে ,তবে ভিসা নীতির যে প্রভাব প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং বিচার বিভাগের কর্মকর্তাদের ওপর পড়েছে সেই প্রভাব নিরসন না করতে পারলে সরকারের জন্য সামনের দিনগুলো অনেক চ্যালেঞ্জিং হবে বলে তারা মনে করছেন।

আওয়ামী লীগের অনেক নেতা স্বীকার করেছেন যে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং প্রশাসন সামনের দিনগুলোতে এক ধরনের অস্বস্তিতে কাটাবে এবং ভিসা নীতির ভয়ে সাধারণ কাজ করতে গিয়ে আতঙ্ক বোধ করবে। এর প্রভাব পড়বে প্রশাসনের ওপর। নির্বাচনের তিন মাস আগে প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যদি নিষ্ক্রিয় হয়ে যায় সেক্ষেত্রে বিরোধী আন্দোলন আরও চাঙ্গা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।এই ভিসা নীতির আতঙ্ক প্রশাসনকে নিষ্ক্রিয় করবে।

About Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • Click to Chat
  • Click to Chat
  • Click to Chat
  • Click to Chat